হাদীসের নামে জালিয়াতি - ড. খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর



হাদীসের নামে জালিয়াতি
লেখক : ড. খোন্দকার আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর
প্রকাশনী : আস-সুন্নাহ পাবলিকেশন্স
বিষয় : হাদীস, হাদীস বিষয়ক আলোচনা


লেখক পরিচিতি:

ড. আ ন ম আব্দুল্লাহ জাহাঙ্গীর ১৯৬১ সালের ১লা ফেব্রুয়ারী ঝিনাইদহ জেলার,ধোপাঘাট গোবিন্দপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন ।



শিক্ষাজীবন :


১. দাখিল, সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা (১৯৭৩)

২. আলিম, সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা (১৯৭৫)

৩. ফাজিল, সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা (১৯৭৭)

৪. কামিল (হাদীস), সরকারী আলিয়া মাদ্রাসা (১৯৭৯)

৫. অনার্স, মুহাম্মদ বিন সাউদ বিশ্ববিদ্যালয়, (১৯৮৬)

৬. মাস্টার্স, মুহাম্মদ বিন সাউদ বিশ্ববিদ্যালয় (১৯৯২)

৭. পিএইচডি, মুহাম্মদ বিন সাউদ বিশ্ববিদ্যালয় (১৯৯৮)



ইমাম মুহাম্মাদ বিন সাউদ বিশ্ববিদ্যালয়  অধ্যায়নকালীন দু'বার শ্রেষ্ঠ ছাত্রের পুরষ্কার লাভ ।


 * শায়খ বিন বায, শায়খ বিন উসায়মিন, আল জিবরিন ও আল ফাউজান সহ বিশ্ববরেণ্য স্কলারদের সান্নিধ্যে থেকে ইসলাম প্রচারে বিশেষ দীক্ষা গ্রহণ করেন।





::: কর্মজীবন :::



* শাইখুল হাদীস (খন্ডকালীন), দারুস সালাম মাদ্রাসা, ঢাকা

* দাঈ ও অনুবাদ, রিয়াদ (২ বছর)

* লেকচারার (আল হাদীস এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ), ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয় কুষ্টিয়া (১৯৯৮-২০০৯)

* খতিব, কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ, কুষ্টিয়া



ব্যক্তিজীবনে অত্যন্ত সদালাপী, বিনয়ী, উম্মাহর জন্য দরদী, মুখলিস,পরমত সম্মানকারী, যুগসচেতন, ভারসাম্যপূর্ণ, উম্মাহর ঐক্য কামনাকারী, প্রাজ্ঞ ও পন্ডিত হিসেবে সকলের নিকট সমাদৃত ছিলেন । ২০১৫ সালের ১২ই মে, রোড এক্সিডেন্টে মৃত্যুবরণ করেন ।



"হাদীসের নামে জালিয়াতি" ব‌ইয়ের বিষয়বস্তু :


"হাদীসের নামে জালিয়াতি" ভারতীয় উপমহাদেশের প্রেক্ষাপটে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ব‌ই । এ মহাদেশের মুসলিমরা ধর্মপ্রাণ ও তুলনামূলক বেশি আমল করে থাকে । সহজ-সরল এ মুসলিম জনগোষ্ঠীকে সরাসরি ইসলাম থেকে দূরে না রেখে ভুল-ভাল আমলে ব্যস্ত রেখে প্রকৃত ইসলামের স্বাদ হতে দূরে রাখার মতলব আটে ইসলাম বিদ্বেষীরা । সরলমনা, নতুন ধর্মান্তরিত মুসলিমরা তাদের ফাঁদে পা দেয় । সে সময় থেকে এখন পর্যন্ত সে সকল হাদীসের উপর আমল হয়ে আসছে । লেখক মূলত তা হতে এ উপমহাদেশের মুসলিমদের সচেতন ও হাদীসে বর্ণিত আমল নিয়ে এ ব‌ইটি লিখেছেন ।


ব‌ইটি মূলত দু'ভাগে বিভক্ত । প্রথম ভাগে হাদীসের পরিচয়, হাদীসের নামে মিথ্যার বিধান, ইতিহাস, হাদীসের নির্ভুলতা নির্ণয়ে সাহাবীগণ ও পরবর্তী মুহাদ্দিসগণের নিরীক্ষা পদ্ধতি, নিরীক্ষার ফলাফল, মিথ্যার প্রকারভেদ, মিথ্যাবাদী রাবীগণের শ্রেণীভাগ, জাল হাদীস নির্ধারণের পদ্ধতি ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার চেষ্টা করা হয়েছে।


দ্বিতীয় ভাগে আমাদের সমাজে প্রচলিত বিভিন্ন ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও জাল হাদীসের বিষয়ভিত্তিক আলোচনা করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, জাল হাদীসের বিষয়ে লেখকের মূলত নিজের কোনো মতামত উলেখ করা হয়নি। দ্বিতীয় হিজরীর তাবেয়ী ও তাবে- তাবেয়ী ইমামগণ থেকে শুরু করে পরবর্তী যুগের অগণিত মুহাদ্দিস রাসূলুলাহ (সাঃ)-এর নামে প্রচারিত সকল হাদীস সংকলন করে, গভীর নিরীক্ষা ও যাচাইয়ের মাধ্যমে সে সকল হাদীস ও রাবীদের বিষয়ে যে সকল মতামত প্রদান করেছেন লেখক মূলত সেগুলির উপরেই নির্ভর করেছেন এবং তাঁদের মতামতই উল্লেখ করেছেন ।

এ ব‌ই অধ্যায়নের ফলে সর্বজন স্বীকৃত হাদীসের আমল করে, ভিত্তিহীন হাদীসের আমল পরিত্যাগ করে ইহকালীন এবং পরকালীন কামনা-বাসনা পূরন ও আল্লাহর নৈকট্য লাভ করা সম্ভব, ইনশাআল্লাহ ।




                                             
[পিডিএফ ডাউনলোড করুন]

Post a Comment

0 Comments